যবিপ্রবির সমাবর্তনে চ্যান্সেলর স্বর্ণ পদক পাচ্ছেন ৮ গ্রাজুয়েট

0
227

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সমাবর্তনে অংশ নেওয়ার জন্য ৫৭০ জন গ্রাজুয়েট রেজিস্ট্রেশন করেছেন। তাদের মধ্যে আটজন গ্রাজুয়েট পাচ্ছেন চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক।
.
এদিকে, বর্ণাঢ্য ও মনোজ্ঞ আয়োজনে সমাবর্তন অনুষ্ঠানের জন্য প্রায় সব প্রস্তুতিই শেষ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি দুপুরে এই সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে।
.
আজ শনিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন এসব তথ্য জানান।
.
অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সমাবর্তনে রেজিস্ট্রেশন করা অভিভাবকদের সঙ্গে ৪৬৬ জন অভিভাবক আসবেন। এ অনুষ্ঠানে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তাসহ ৪৮৪ জন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সমাবর্তন সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। ১৯টি কমিটি ও উপ-কমিটি তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব অত্যন্ত সূচারুভাবে পালন করছে।
.
তিনি জানান, পরীক্ষায় অসাধারণ কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখায় এবারের সমাবর্তনে আটজন গ্রাজুয়েটকে চ্যান্সেলর স্বর্ণ পদক, পাঁচজন শিক্ষার্থীকে ভাইস চ্যান্সেলর অ্যাওয়ার্ড এবং ৫৬ জন শিক্ষার্থীকে ডিন্স অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হবে। ইতিমধ্যে শিক্ষার্থীদের জন্য মেডেল, ক্রেস্ট এবং অন্যান্য উপহার সামগ্রী তৈরির কাজও সম্পন্ন হয়েছে।
.
১১ বছর কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য কোনো উল্লেখযোগ্য সময়ই নয় উল্লেখ করে উপাচার্য ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এ স্বল্প সময়ের পথ পরিক্রমায় তৃতীয় সমাবর্তন অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে পারাটা যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য একটি বড় অর্জন।
.
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন রাষ্ট্রপতি ও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মো. আবদুল হামিদ।
.
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান।
.
এবারের সমাবর্তনের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হলো, এই প্রথম এশিয়া মহাদেশের বাইরের কোনো নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানী সমাবর্তন বক্তা হিসেবে বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে আসছেন। তিনি হলেন, জার্মান নাগরিক, ১৯৮৮ সালে রসায়ন শাস্ত্রে নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. রবার্ট হিউবার। তিনি ম্যাক্স প্লাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর বায়োকেমিস্ট্রির ইমেরিটাস ডাইরেক্টর।
.
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. বিপ্লবকুমার বিশ্বাস, ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন ড. মো. ওমর ফারুক, স্বাস্থ্যবিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মো. নাসিম রেজা, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. এ এম এম মুজাহিদুল হক, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল আমিন, রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী আহসান হাবীব প্রমুখ।