বাঘারপাড়ার রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচন প্রচারে এগিয়ে সতন্ত্র তরুণ প্রার্থী শাহীনুর রহমান

0
541

বাঘারপাড়া উপজেলার খাজুরার পার্শ্ববর্তী রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যন পদে উপ-নির্বাচনকে ঘিরে জমে উঠেছে উৎসবের আমেজ। গত ১০ জুলাই নির্বাচন কমিশন থেকে প্রতিক বরাদ্দের পরই প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণায় মুখরিত এখন রায়পুর জনপদ। আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও তাদের কর্মীরা চালিয়ে যাচ্ছেন ব্যাপক প্রচারণা। বসে নেই সতন্ত্র প্রার্থী ও তার কর্মী ও সমর্থকেরা। প্রার্থীদের ডাকেই ভোটারদের ঘুম ভাঙছে। তারা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে চাইছেন ভোট ও দোয়া। বাজার ও রাস্তার মোড়ে চায়ের দোকানগুলোতে চলছে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড়।

মঙ্গলবার ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, প্রার্থীদের পোষ্টার ও ব্যানারে ছেয়ে গেছে প্রতিটি গ্রাম। নির্বাচনে ৪ জন প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করলেও সতন্ত্র প্রার্থী রবিউল ইসলাম ও সুলতান আহম্মেদ মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। যে কারণে ভোট হবে দুই প্রার্থীর মাঝে। একজন হলেন এ ইউনিয়নের ৪ বারের নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের মনোনয়প্রাপ্ত প্রার্থী মঞ্জুর রশিদ স্বপন (নৌকা) প্রতিক। অন্যজন সতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতিকের শাহীনুর রহমান।

সজেমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিদিন কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট ও দোয়া চাইছেন। নিজেদের অবস্থান তুলে ধরে আগামীর উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি তাদের মুখে। এ ইউনিয়নের উন্নয়ন কার্যক্রম এগিয়ে নিয়ে যেতে চান প্রার্থীরা। সমগ্র ইউনিয়ন পোষ্টার ও ব্যানারে টাঙিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা।

কথা হয় ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের প্রায় ৩০ জন ভোটারের সাথে। তারা বলেন, প্রার্থীরা তাদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। তারা প্রার্থীদের সামনে এলাকার বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরছেন। নির্বাচিত হলে প্রার্থীরা এ সব সমস্যা সমাধান করবেন বলে আশ্বাস দিচ্ছেন। তবে কোন প্রার্থীকে ভোট দেবেন এ সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত নেননি তারা। চোখ কান খোলা রেখেছেন। যে প্রার্থী তাদের খোঁজখবর রাখবেন ও বিপদ-আপদে সর্বদা পাশে থাকবেন সে প্রার্থীকেই তারা নির্বাচিত করতে চান।

নৌকা প্রতিকের প্রার্থী মঞ্জুর রশিদ স্বপন জানান, বিগত ৪ বার আমি এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলাম। আমার হাতেই ইউনিয়নের প্রতিটি প্রান্তরে অসখ্য উন্নয়ন কাজ হয়েছে। তাই ভোটারদের কাছে আমার গ্রহণগোগ্যতা একটু বেশিই। তাছাড়া বর্তমান সরকার দেশে ব্যাপক উন্নয়ন করেছে। তাই নৌকা মার্কাকেই ভোটারেরা বেছে নেবেন। নেতা-কর্মীদের নিয়ে দিন-রাত প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। ভোটারদের ব্যাপক সমর্থন পাচ্ছি।

সতন্ত্র তরুণ প্রার্থী আনারস প্রতিকের শাহীনুর রহমান জানান, দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ এ ইউনিয়নের মানুষ সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড ও বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। তাই এবার নির্বাচনে ভোটারের চেয়ারম্যান হিসাবে নতুন মুখ চাই। গণসংযোগকালে ভোটারদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিজয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।

উপজেলা নির্বাচন ও রিটানিং কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান শিকদার বলেন, নিবার্চন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী বির্নাচন অবাধ, গ্রহণযোগ্য ও প্রভাবমুক্ত করতে প্রশাসন ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। আশা করি নির্বাচন সুষ্টু হবে।

৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত বাঘারপাড়া উপজেলার ১৮ বর্গকিলোমিটারের এ ইউনিয়ন। আগামী ২৫ জুলাই এ ইউনিয়নে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ৬ শত ৪১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৯ হাজার ৮ শত ৯১ ও নারী ৯ হাজার ৭ শত ৫০জন ভোটার রয়েছে।