ডিসেম্বর থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠাবে বাংলাদেশ

0
134

মালয়েশিয়ায় বন্ধ শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে একমত হয়েছে দুই দেশ। চলতি বছরের ডিসেম্বরেই দেশটিতে কর্মী পাঠাতে আগ্রহী হয়েছে বাংলাদেশ।

বুধবার (০৬ নভেম্বর) স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের পার্লামেন্ট ভবনে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে একমত হয় দুই দেশ।

বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ নেতৃত্বে মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধি দল এবং মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এম কুলাসেগারান নেত্বত্ব দেন।

বৈঠকে চলতি বছরের ডিসেম্বরেই দেশটিতে কর্মী পাঠাতে আগ্রহী হয়েছে বাংলাদেশ। এ লক্ষ্যে মালয়েশিয়ার একটি প্রতিনিধি দল চলতি মাসে ঢাকায় আসবে। এই বৈঠকে ন্যূনতম অভিবাসন ব্যয়ে কর্মী পাঠানো, রিক্রুটিং এজেন্সির পরিধি, কর্মীর মেডিকেল এবং শ্রমিকদের আর্থিক সুরক্ষাসহ নানা বিষয়ে আলোচনা হয়।

মালয়েশিয়ায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী ২৪ ও ২৫ নভেম্বর ঢাকায় জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এই বৈঠকের পরই মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো শুরু করতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে দুই দেশ।

বৈঠকে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, যুগ্ম-সচিব ফজলুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক মো. আজিজুর রহমান, বিএমইটির পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম, হাইকমিশনার মুহ. শহীদুল ইসলাম ও কাউন্সিলর (শ্রম) মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ হওয়ার আগে বি টু বি প্লাস চুক্তির আওতায় কর্মী পাঠানো হতো। দেশের ১০টি রিক্রুটিং এজেন্সি এই প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করত। তাদের বাইরে অন্য কোনো এজেন্সি সরাসরি লোক পাঠাতে পারতো না। এই প্রক্রিয়ায় দেশে এবং মালয়েশিয়ায় নানামুখী অনিয়মের অভিযোগে মালয়েশিয়া সরকার নিয়োগ বন্ধ করে দেয়। পরে কর্মী নিয়োগের নতুন কোনো পদ্ধতির বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেয়নি দেশটি।

গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর অনলাইন পদ্ধতি এসপিপিএ বন্ধ হয়ে যায়। পরে ওই বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর তৎকালীন প্রবাসী ও বৈদেশিক কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি মালয়েশিয়া গিয়ে বৈঠক করলেও কোনো ইতিবাচক ফল মিলেনি। পরে ৩১ অক্টোবর ঢাকায় দুই দেশের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেই বৈঠকে নতুন করে কর্মী নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়।

চলতি বছরের ১৪ মে ইমরান আহমদ মালয়েশিয়া সফরে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তানশ্রি মুহিউদ্দিন ইয়াসিন ও মানবসম্পদমন্ত্রী এম কুলাসেগারানের সঙ্গে বৈঠক করেন।

সেই বৈঠকের অগ্রগতি হিসেবে ২৯ ও ৩০ মে মালয়েশিয়ায় দুদেশের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের আরেকটি বৈঠক হয়।