শিক্ষিত বেকারের শীর্ষে ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার!

0
116

ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ থেকে ২০১৬ সালে বিডিএস পাস করেন সাদিয়া সায়রা। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে শেষ করেন দুই বছরের ইন্টার্নি। সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ইন্টার্নির সময়কালে মাসে ১৫ হাজার টাকা করে সম্মানী দেয় সাদিয়াকে। সর্বশেষ ২০১৯ সাল জুড়ে মেডিকেল অফিসার (এইচএমও) হিসেবে একই প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন তিনি। তবে সেটি ছিল বিনা পারিশ্রমিকে। এক বছর দায়িত্ব শেষে বর্তমানে উচ্চতর (এফসিপিএস) ডিগ্রির ভর্তি কোচিং করছেন সাদিয়া। গত সোমবার (৯ মার্চ) সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে কথা হয় তার সঙ্গে।

সাদিয়া বলেন, ‘আমার বন্ধুদের মধ্যে যারা জেনারেল সাবজেক্টে পড়াশোনা করেছে তাদের সবাই চাকরি করছে। এ ক্ষেত্রে আমি ভিন্ন। এখনো পরিবার থেকে টাকা নিয়ে কোচিং করছি, হাত খরচ নিচ্ছি। পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন পরীক্ষা দিতে অনেক টাকা দরকার। ভর্তি হলে আরও টাকা দরকার। সবই নিতে হবে পরিবার থেকে, যা ভীষণ লজ্জার! তাই ভাবছি ডাক্তারি না করে হেলথ রিলেটেড গবেষণা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করব।’

সাদিয়ার মতো দেশে প্রতিনিয়তই বাড়ছে উচ্চ ডিগ্রিধারী বেকারের সংখ্যা। বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) ২০১৯ সালের এক হিসাব বলছে, দেশে উচ্চশিক্ষিতের ৩৩ দশমিক ৩২ শতাংশই বেকার। এ তালিকায় সবার ওপরে দেশের সর্বাধিক ব্যয়বহুল মেডিকেল ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অবস্থান করছে বলে তথ্য দিয়েছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)।

প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ শ্রম জরিপে বলা হয়েছে, দেশের ১৪ দশমিক ২৭ ভাগ চিকিৎসক ও প্রকৌশলী বেকার। মেডিকেল কলেজ ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া নারী শিক্ষার্থীদের বেকারত্বের হার ৩১ শতাংশ। তালিকায় মেডিকেল ও প্রকৌশল শিক্ষার্থীদের তুলনায় কম বেকার রয়েছেন উচ্চ মাধ্যমিক পাস করা শিক্ষার্থীরা। আর ১০ দশমিক ২৫ স্কোর নিয়ে সাধারণ স্নাতক ডিগ্রিধারীরা চিকিৎসক ও প্রকৌশলীদের চেয়ে আরও ভালো অবস্থানে রয়েছেন।

স্নাতক (এমবিবিএস-বিডিএস) শেষ করা চিকিৎসক ও প্রকৌশলীদের বেকারত্ব নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও গবেষকরা। তাদের মতে, চিকিৎসা খাতে চাকরির সীমাবদ্ধতা থাকলেও একজন এমবিবিএস ডিগ্রিধারী ব্যক্তি নিজের চেষ্টায়ও বেকারত্ব ঘোচাতে পারেন। বিআইডিএসের মহাপরিচালক ড. কেএএস মুর্শিদ এক জাতীয় দৈনিককে বলেন, ‘ডাক্তার ও প্রকৌশলীরা বেকার কথাটা ঠিক নয়। তারা হয়তো পছন্দসই চাকরি পাচ্ছে না। এটা বেকারত্ব নয়। যারা চাকরি পায় তারা আবার গ্রামে যেতে চায় না। মফস্বল হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক ঘাটতি থাকছে। এমবিবিএস পাস করা একজন ব্যক্তি চাইলে নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করতে পারে। তবে প্রকৌশলীদের ব্যাপারটা ভিন্ন।’

চিকিৎসক ঘাটতির দেশে চিকিৎসকদের বেকারত্ব:
বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) হিসাবে, স্বাধীনতার পর থেকে স্নাতক শেষ করে চিকিৎসক হিসেবে নিবন্ধন নিয়েছেন প্রায় এক লাখ শিক্ষার্থী। যদিও তাদের মধ্যে অনেকে ইতিমধ্যে মারা গেছেন। স্বাস্থ্য খাতসংশ্লিষ্টদের হিসাবে দেশে এখন সরকারি হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজগুলোতে চিকিৎসক আছেন ৩০ হাজারের মতো। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নিয়ম অনুযায়ী, প্রতি এক হাজার জনগোষ্ঠীর জন্য একজন চিকিৎসক থাকতে হয়। সেখানে বাংলাদেশে আছে প্রায় তিন হাজার লোকের জন্য একজন চিকিৎসক।

দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি হিসাবে ধরলেও মোট ১ লাখ ৬০ হাজার চিকিৎসক প্রয়োজন। ফলে চাহিদার বিপরীতে প্রায় ৭০ শতাংশ চিকিৎসক ঘাটতি রয়েছে দেশে। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব এহতেশামুল হক চৌধুরী জাতীয় দৈনিকটিকে বলেন, ‘বাংলাদেশের সবচেয়ে কঠিন সিলেবাস পড়ে আসা ছেলেমেয়েরা বেকার থাকছে এটা হতাশার। মূলত চিকিৎসা খাতে নানা অনিয়মের কারণে এ সংকট সৃষ্টি হয়েছে। গার্মেন্টস ও ব্যাংকসহ বিভিন্ন শিল্প কারখানাগুলোতে কর্মীর সংখ্যা হিসাব করে ডাক্তার নিয়োগ বাধ্যতামূলক করতে হবে। এছাড়া ডাক্তারদের নিজেদেরও স্বনির্ভরতার পথ খুঁজতে হবে।’

বেকারত্ব নিয়ে যা বলছেন শিক্ষার্থীরা:
আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) বেকারত্বের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, কাজপ্রত্যাশী হওয়া সত্ত্বেও সপ্তাহে এক দিন এক ঘণ্টা কাজের সুযোগ না পেলে ওই ব্যক্তিকে বেকার হিসেবে ধরা হবে। অর্থাৎ কোনো ব্যক্তি সপ্তাহে এক ঘণ্টা কাজ করে মজুরি পেলে তাকে আর বেকার বলা হয় না। ঢাকার জেড এইচ শিকদার উইমেন মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী ফারজানা তাসনিম বলেন, ‘অধিকাংশ বাবা-মা মেয়েদের ডাক্তারি পড়ান ভালো পাত্রের সন্ধানে। একবার বিয়ে হয়ে গেলে মেয়েদের চিকিৎসা পেশায় টিকে থাকা কষ্টকর। ফলে মেয়েরা বেকার থাকছে বেশি।’ নর্দার্ন মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী ওসমান গনি আরাফাত বলেন, ‘এমবিবিএস পাস করার পর চাকরি করার জায়গাটা কোথায়? বেসরকারি ক্লিনিক-হাসপাতালগুলোতে চাকরি পেলে মাসে ২০ হাজার টাকা বেতন। সপ্তাহে সাত দিনই কাজ করতে হয়। আবার ব্যবসা খারাপ হলে মালিকরা বেতন আটকে রাখেন। প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতে গেলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার না হলে রোগী আসে না। এখানে টিকে থাকা খুবই কষ্টকর। এজন্য অনেকে বিদেশ পাড়ি জমাচ্ছেন।’ বুয়েট শিক্ষার্থী শামীম আহমেদ বলেন, ‘ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েট ইঞ্জিনিয়াররা বেকার থাকে সামান্য। তবে অনেকে দেশের সিস্টেমের প্রতি বিরক্ত হয়ে বেকার থাকে। তারা আবার দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য পড়াশোনা করেন।’

শিক্ষায় গলদ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা:
দেশের ১১১টি সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫২ হাজার। প্রতি বছর ১০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী স্নাতক শেষ করছেন। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক রয়েছেন মাত্র ১০ হাজারের মতো। বিএমডিসির নীতিমালা অনুযায়ী, কোনো মেডিকেল কলেজে বছরে ৫০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হলে সেখানে ১৯৮ জন শিক্ষক থাকতে হবে। এ হিসাবে দেশের মেডিকেল কলেজগুলোতে ২৫ হাজার শিক্ষক থাকা দরকার। শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. নিতিশ কৃষ্ণ দাস বলেন, ‘চিকিৎসা শাস্ত্র অন্য শিক্ষার মতো নয়। প্রথমত এখানে চিকিৎসক হওয়ার তীব্র প্যাশন (ঝোঁক) থাকতে হবে। দ্বিতীয়ত যোগ্যতা ও দক্ষতা থাকতে হবে। এ যোগ্যতা-দক্ষতা স্নাতক (এমবিবিএস) লেভেলেই শিক্ষার্থীদের দিতে হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে ক্লাসরুমে এটা আমরা দিতে পারছি না। আবার অনাগ্রহ নিয়ে অনেক শিক্ষার্থী এমবিবিএস পাস করছে। ফলে প্যাশন, যোগ্যতা ও দক্ষতার ঘাটতির কারণে বেকারত্ব বাড়ছে।’

বিআইডিএসের একজন জ্যেষ্ঠ গবেষণা ফেলো একই জাতীয় দৈনিককে বলেন, ‘মেডিকেল শিক্ষায় এক ধরনের নৈরাজ্য চলছে। বেসরকারি মেডিকেলগুলোতে টিচার, লজিস্টিক সাপোর্ট, গবেষণা ল্যাব, আবাসন সবকিছুর ঘাটতি রয়েছে। ফলে শিক্ষার্থীরা টেকনিক্যালি সাউন্ড হতে পারছে না। এমবিবিএস পর্যায়ে ব্যবহারিক শিক্ষার অভাবে তারা বেকার থাকছে।’ অন্যদিকে স্বাস্থ্য অধিকার আন্দোলন জাতীয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মাহবুব ই রশীদ বলেন, ‘ডাক্তারদের বেকারত্ব কমাতে উন্নত বিশ্বে রেফারেল সিস্টেম চালু আছে। জরুরি অবস্থা ছাড়া যেকোনো অসুখের জন্য রোগীকে প্রথমে একজন সাধারণ এমবিবিএস পাস করা ডাক্তারের কাছে যেতে হয়। তারা প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর যদি মনে করেন রোগীর উন্নতমানের চিকিৎসা লাগবে, তাহলেই শুধু সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে পাঠান বা রেফার করেন। কিন্তু আমাদের দেশে সামান্য সর্দি-কাশি বা ঠাণ্ডা-জ্বর হলেই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে সরাসরি চলে যায়। এতে এমবিবিএস ডিগ্রিধারীদের মধ্যে কাজের সুযোগ কমে গেছে।